নাথেরপেটুয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত চেয়ে মন্ত্রণালয়ে অনুলিপি

0
229
#

নিউজ ডেস্ক :

অনুলিপি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

#

মহাত্মন,
যথা বিহিত সম্মান প্রদর্শন পূর্বক বিনীত নিবেদন এই যে, আমি ১০নং পেটুয়া ইউনিয়নের অন্তর্গত বিনয়ঘর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা এবং নাথেরপেটুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন হিতাকাঙ্ক্ষীও বটে। বিদ্যালয়ের যাবতীয় উন্নয়নমূলক কাজে আমি সহযোগিতা করে আসতেছি।

নাথেরপেটুয়া উচ্চ বিদ্যালয় একটি প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয় হিসেবে সুনাম অর্জন করিয়াছে এমতাবস্থায় বিদ্যালয় হিসেবে সুনাম অর্জন করিয়াছে। এমতাবস্থায় কয়েক বছর পূর্বে বিদ্যালয় অফিস কক্ষে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়।
এইমর্মে হত্যা মামলা রুজু করা হইয়াছে। শিক্ষক সমিতি বহু আন্দোলন, মানববন্ধন ও দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের হত্যা রহস্য উদঘাটন আজও হয় নাই। প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম হত্যা মামলার ০১নং আসামি ছিলেন আবদুল মান্নান চৌধুরী। তিনি বর্তমানে নাথের পেটুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন।
প্রথম শিক্ষক সিরাজুল ইসলামের পরবর্তীতে প্রধান শিক্ষক পদে গোলাম মর্তুজা(খোকন) কে নিয়োগ দেওয়া হয়।
গোলাম মর্তুজা দক্ষতার সহিত দ্বায়িত্ব পালন করিয়া আসিতেছেন।
আমার বিশ্বাস প্রধান শিক্ষক গোলাম মর্তুজাকে যে কোন অপশক্তি ভয় ভীতি ও হুমকি ধুমকি প্রদর্শন করায় প্রাণভয়ে তাহার ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষক পদ হইতে অব্যাহতি গ্রহণ করিয়াছেন।
বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়াল প্রধান শিক্ষক পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার লোভে বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল মান্নান চৌধুরীর সাথে গোপনে নানান পরিকল্পনা ও অকৌশল অবলম্বন করে। বিগত ২৫/০৫/২১ইং তারিখে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় ০৫জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করে। তম্মধ্যে বর্তমান সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়াল ১ম স্থান বিবেচনায় প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। পরীক্ষায় প্রশ্ন পত্র ফাঁস স্বজনপ্রীতি দূর্নীতিসহ আরো অনেক অনিয়মের অভিযোগ রহিয়াছে। যাহা তদন্তে প্রমাণিত হইবে। বিদ্যালয়ের বর্তমানে সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল আউয়ালকে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দিলে বিদ্যালয়ের অপূরনীয় ক্ষতি হইবে।
এমতাবস্থায় নাথের পেটুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ আদেশ স্থগিতক্রমে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ আবশ্যক।
অতএব, মহোদয় দয়া প্রকাশে নাথের পেটুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ আদেশ স্থগিতক্রমে তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে মর্জি হয়।

অনুলিপিঃ ১/ মাননীয় মন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রনালয়। ২/ মাননীয় মন্ত্রী, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন, সমবায় মন্ত্রণালয়। ৩/মাননীয় জেলা প্রশাসক, কুমিল্লা। ৪/ মাননীয় চেয়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, কুমিল্লা। ৫/ মাননীয় জেলা শিক্ষা অফিসার, কুমিল্লা। ৬/ মাননীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, মনোহরগঞ্জ, কুমিল্লা।

নিবেদক- বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সাঈদ মজুমদার।

Facebook Comments

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here