যুদ্ধ শেষ, বউ ম্যাজিস্ট্রেট

0
161
#

আপেল মাহমুদ:

গেজেট প্রকাশের মধ্যে দিয়ে আল্লাহ্’র রহমতে দীর্ঘ সাড়ে তিন বছরের যুদ্ধ শেষ করলো বউ। ৩৮ তম বিসিএস’র সব ধরণের বাঁধা সাহসিকতা আর মেধার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ায় ফেব্রুয়ারির(ডেটটা দেয়নি)মাঝামাঝি দেশের প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা-নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে যোগ দেবে।

#

২০১৩ সালে বিয়ের ছয় মাসের মাথায় বউ পেটে সন্তান নিয়ে একদিকে তার সাংবাদিকতা পেশা, মাস্টার্সের লেখাপড়া আরেক দিকে বিসিএস প্রস্তুতি।

সন্তান হওয়ার পর সোনালী ব্যাংকে চাকরির পাশাপাশি একের পর এক বিসিএস পরীক্ষা সামলে বউ এখন ম্যাজিস্ট্রেট। স্বামী হিসেবে এটা কতটা গর্বের তা প্রকাশ করা সম্ভব না।

সন্তানের কাছে আমরা ঋণী: দীর্ঘ এ যুদ্ধে সবচেয়ে বড় অবদান আমাদের একমাত্র ৫ বছরের সন্তান বিস্ময়ের। যূথী যখন বিসিএসের ফরম তোলে তখন ছেলের বয়স প্রায় দেড় বছর। তখনও সে মায়ের বুকের দুধ খাওয়া ছাড়েনি।

কোচিং, লাইব্রেরি, বাসায় পড়ালেখার পাশাপাশি ছোট্ট বাচ্চাটার প্রতি তার যত্ম নেওয়া অবিশ্বাস্য। আবার প্রিলি, লিখিত পরীক্ষা, ভাইভাকালীন ছেলেটাকে নানির বাড়ি আবার কখনো দাদির কাছে মা’কে ছাড়া থাকতে হয়েছে। দীর্ঘ এ যাত্রায় ছেলেকে আদর, ভালবাসায় দুরে রেখে কখনো একাকী চোখের পানি ফেলেছে যূথী।

দুজনের শ্বশুর বাড়ি: যূথী যখন চাকরির ইচ্ছা পোষণ করে তখন তাতে আমার বাবা-মা শুধু সম্মান নয়, কিভাবে ভালো চাকরি পাওয়া যায় তাতে উৎসাহ দিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া শেষ করে বউ ঘরে বসে থাকবে কেন! সেটাই ছিল তাদের প্রশ্ন। আর সন্তান মানুষ করতে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করতে হয়না।

যূথীর বিসিএস প্রস্তুতিতে যেন সমস্যা না হয় সেজন্য শ্বশুরী-শ্বশুর অসুস্থ শরীর নিয়ে চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকা এসে মাসের পর মাস আমার ছেলে, সংসার সামলিয়েছে।

কখনো চুয়াডাঙ্গা ছেলেকে নিয়ে সবাই দেখাশোনা করেছে।আমার বাবা-মা কখনো কাছে থেকে কখনো দুরে থেকে সব ধরণের সহযোগিতা করেছেন। আমার বাবা কখনো যূথীকে কখনো আমাকে সাহস যুগিয়েছেন। আমার বাবা-মা এসএসসি পাস হলেও তাদের মহানুভবতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিগ্রিধারীদের তুলনায় কম দেখিনি।

(এখনে আমার কোন ভূমিকা আছে বলে মনে করিনা। তার এ পথ চলায় অনেক শিক্ষিত মানুষও কটূক্তি করেছে, পিছনে টেনে ধরার চেষ্টা করেছ। স্বামী হিসেবে আমি শুধু বউয়ের হাতটা শক্ত করে ধরে ছিলাম। পিছলে পরে যেন ব্যথা না পায়।)

সবাই আমার বউয়ের জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ্ তাকে সুস্থ্য রেখে দেশের সেবায় নিয়োজিত রাখতে পারে।

লেখক: সিনিয়র রিপোর্টার, এটিএন বাংলা।

Facebook Comments

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here